Posted By

দ্বীনদার সন্তানের অবমুল্যায়ণ..

Education 15

সন্তান বখাটে, বেয়াদব হলে বাবা মা কে কষ্ট দিয়ে, বাসায় অশান্তি করে ঠিকই তাদের প্রয়োজন আদায় করে নেয়। যদিও এমন সন্তানেরা ইহকালে ও পরকালে চরমভাবে ধ্বংস হয়। .অথচ সন্তান দ্বীনদার হলে সে বাসায় মুখ ফুটে নিজের প্রয়োজনের কথা বলতে পারেনা, যদি বাবা মা কষ্ট পান সেটা ভেবে আর ঠিক এ সুযোগে বাবা মায়েরাও তাদের হক নিয়ে ভাবতে চান না !! .বাবা মা গর্ব করে বলে বেড়ান 'আমার সন্তান ভালো, দ্বীনদার, আমাদের অবাধ্য হয়না '.অথচ আপনারাই সন্তানদের এই দ্বীনদারিতা মুল্যায়ণ করেন না। বরং এই সুযোগ নিয়ে কিছু বাবা মা সন্তানের হকের ব্যাপারে যথেষ্ট অবহেলা করেন, একেবারে নিশ্চিন্তে থাকেন।.সন্তান আর দশজনের মত প্রেম করে বেড়াচ্ছেনা আলহামদুলিল্লাহ, কিন্তু তার তো মানসিক, আত্মিক ও শারীরিক চাহিদা আছে অথচ বাবা মা তার বিয়ে সহ তার যাবতীয় প্রয়োজন যেমন শখ আহ্লাদ ইত্যাদি ব্যাপারে বেখেয়াল।.'এইতো দিব, দিচ্ছি আর কয়েক বছর যাক, এত তাড়াহুড়োর কী আছে' - দিব্যি এই কথাগুলো খুব সাধারণ ভাবেই বলে থাকেন অভিভাবকরা।.অথচ অভিভাবকরা চোখের নিমিষে বছর পার করে দিলেও দিন গুলো যার মিনিট আকারে নষ্ট হচ্ছে সেই বুঝছে। বাবা মা কখনই তা অনুভব করতে পারবেন না।.প্রেম করে পালিয়ে বাবা মা ও পরিবারের মান সম্মান ডুবালে কী ভাল হতো খুব? .আপনাদের নসীব যে সন্তান দ্বীনি হওয়ায় আপনাদের থেকে তার দ্বীনদারিতার বা ভালো হবার মুল্যায়ন আশা করলেও, তা না পেয়ে সে খারাপ হয়ে যায় না।.প্রতিদান একমাত্র সে আল্লাহ'র থেকেই আশা করে।কষ্টের না বলা কথা গুলো সে আল্লাহ তায়ালাকেই রোজ কেঁদে কেঁদে বলে। মাঝে মাঝে দুই একজন আমাদেরকে শেয়ার করে। অভিভাবকের মন পরিবর্তনের দুয়া আর তাদের উদ্দেশ্যে লেখালেখি ছাড়া আমরা আর কী ই বা করতে পারি? .আল্লাহ'র প্রতিদানের আশা না করলে, ভালো হয়েও মুল্যায়ন না পাওয়াই কবেই সে খারাপ হয়ে যেতে পারত। বর্তমান জামানায় এটা খুবই সহজ। যে ভাল থাকতে চায় তা তার জন্য কঠিন, এবং যে খারাপ থাকতে চায় তা তার জন্য সহজ এবং খুবই ।.আবার কেউবা যদি ধৈর্য্যের বাঁধ ভেংগে নিজে থেকেই বাসায় নিজের প্রয়োজনের কথা জানায় তখন বাবা মা তাকে বেয়াদব বলেন, গালিগালাজও করেন।.কী আশ্চর্য! নিজেরা মুল্যায়ন করলেন না, সে যখন বাধ্য হয়ে নিজে থেকে বলছে নিজের হকের কথা এখন উলটো আবার অবমুল্যায়ন! .দ্বীনি সন্তান এমন এক নেয়ামত যার ফায়দা মরনত্তোরও মানুষের আমল নামায় যোগ হতে থাকে। .দ্বীনি সন্তানকে মুল্যায়ন করতে শিখুন। যাদের সন্তান দ্বীনদার নয় তাদের বাবা মা ই বুঝে সন্তান খারাপ হলে কি জ্বালা যন্ত্রনা কিংবা দ্বীনদার সন্তান কত বড় নিয়ামত।.কত মা জায়নামাজে কেঁদে চোখ ভাসাচ্ছেন সন্তান নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে গেছে! আপনাকে কাঁদতে হচ্ছেনা সন্তান নিয়ে আলহামদুলিল্লাহ, এর শোকরিয়া আদায় করুন ও মুল্যায়ন করুন।.বাবা মা এর এমনই মর্যাদা যে, সন্তানরা বাবা মা কে উফ শব্দ করলেও আল্লাহ তায়ালা সে সন্তানকে পাকড়াও করবেন। আবার বাবা মা হয়েছেন মর্যাদায় সব কিছু মাফ এমন নয়, সন্তানের হক আদায় না করলে, নশ্বর জীবনে তার মুল্যবান সময় নষ্ট করলে, তার আবেগ অনুভুতি গুলো হত্যা করলে আল্লাহ তায়ালা আপনাকেও ভীষণ ভাবে পাকড়াও করবেন।.আল্লাহ তায়ালা আপনার পা এর নীচে ও আপনাদের সন্তুষ্টিতে জান্নাত রেখেছেন, এর অবমুল্যায়নে যেন নিজেরাই জাহান্নামে যাবার ফিকির না করেন।........................আমি এসব লিখলে বাস্তবে ও ইনবক্সে অনেক সমালোচনা শুনি যে সন্তানদের উশকে দেওয়া হচ্ছে।.আল্লাহ তায়ালা অন্তরের খবর জানেন কখনই তা নয়, বরং ফ্রেন্ডলিস্টে যে অভিভাবকরা রয়েছেন তাদের উদ্দেশ্যে একজন সন্তান হয়েই অন্যান্য সন্তানদের পক্ষ থেকে তাদের না বলা কথাগুলো লিখি, যেন বাবা মা' রা সন্তানের আর্তনাদ গুলো শুনেন, অনুভব করেন।

Topics:

দ্বীনদার সন্তানের অবমুল্যায়ণ..

Login to comment login

Latest Jobs