তুলসি মহৌষধের অপর এক নাম যার রয়েছে অসাধারণ ওষধি গুণশক্তি

Health 378

তুলসি গাছ এমন এক উপকারি বস্তু যার কোন তুলনা হয় না। ভেষজ চিকিৎসায় তুলসির রয়েছে ব্যাপক ব্যবহার। তুলসির মধ্যে রয়েছে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিকারসেনোজেনিক যা মানবদেহে ক্যান্সারে বৃদ্ধি রোধ করে। এবার আসুন এর অসাধারণ গুণ সম্পর্কে জানি

শরীরের ডায়াবেটিস নিরাময়ে তুলসি পাতার রস কার্যকরী। এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সডেন্ট ও এসেনশিয়াল অয়েল এবং এ উপাদান গুলোর ফলে ইনসুলিনের সংবেদনাশীলতা বেড়ে যায় ও রক্তে সুগার কমে ডায়াবেটিস কন্ট্রোলে রাখে।

জ্বর,পেটের অসুখ সারাতে তুলসি ব্যবহার করলে ভালো ফল লাভ করা যায়। কারণ তুলসি পাতার রসে জীবাণু, ছত্রাক ও ব্যাকটেরিয়া নাশের ক্ষমতা রয়েছে।এর জন্য পানির সাথে তুলসির রস ও এলাচ গুড়া মিশিয়ে চুলায় তাপ দিয়ে গরম করে নিতে হবে। তারপর ২-৩ ঘন্টা অন্তর পান করতে হবে।

সিজন পরিবর্তনের ফলে সর্দি কাশির প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তুলসির পাতার রস সর্দি কাশি নিরাময়ে চমৎকার কাজ করে। এক্ষেত্রে তুলসির কয়েকটি পাতা নিয়ে রস কের করে নিতে হবে এবং তার সাথে মধু মিশিয়ে খেতে হবে। যেমন ১ চামচ মধুর সাথে দুই চামচ তুলসির রস মিশিয়ে খেতে হবে এর সাথে সামান্য পিয়াজের রস মেশানো যেতে পারে।

তুলসির বীজে রয়েছে অসাধারণ উপকার। তুলসির বীজ পানিতে রাতে ভিজিয়ে রেখে সকালে সে পানির সাথে চিনি মিশিয়ে শরবত তৈরি করে খেলে প্রস্রাবের সমস্যা দূর হয় এবং শরীর ঠান্ডা থাকে।

চর্মরোগ, ত্বকের সমস্যা, মুখের দুর্গন্ধ দুর করতে তুলসি ব্যবহার করা হয়। চর্মরোগ ও পিম্পল দূর করতে তুলসির পাতা বেটে মুখে লাগালে উপকার পাওয়া যায় এবং মুখের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য তুলসির কয়েকটি পাতা দৈনিক চিবিয়ে খেতে হবে। এ পাতার রসের সাথে লবণ মিশিয়ে দাদে লাগালে উপশম হবে। এছাড়াও দেহের কোন অংশ পুড়ে গেলে বা ফোস্কা পড়লে সে স্থানে তুলসির রসের সাথে নারিকেল তেল মিশিয়ে ব্যবহার করলে একদিকে যেমন ব্যথা কমে অপরদিকে দ্রুত সেরে যায় ও দাগ কমে আসে। শরীরে যেকোনো দাগ, ব্রণের দাগ, চোখের নিচের দাগ বসন্তের দাগ উঠাতে তুলসির রস দারুণ কাজ করে সাথে ত্বক কোমল ও উজ্বল করে।

শরীরের কোথাও কীট-পতঙ্গ কামড়ালে সেখানে তুলসি পাতার রস লাগানো যেতে পারে। বাত ব্যথা ও ক্রিমি রোধে তুলসি প্রয়োগ করা হয়। ক্রিমি রোধের জন্য তুলসি পাতার রসের সাথে পাতি লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া শরীরের রক্ত পরিস্কারে তুলসি উপকারি এজন্য তুলসির রস কয়েকদিন খেতে হবে। মাথাঘোরা বমি বমি বমি ভাব দূর করার জন্য তুলসির সাথে গোলমরিচ মিশিয়ে খেতে হবে।

চোখের সমস্যা ও দাঁতের ব্যথা উপশমে তুলসির ব্যবহার রয়েছে। তুলসি পাতা ভিজিয়ে রেখে সে পানি দিয়ে চোখ ধুতে হবে। দাঁতের সমস্যা সমাধানের জন্য তুলসি পাতা রোদে শুকিয়ে সেগুলো গুঁড়া করে দাঁত মাজতে হবে, এছাড়া সরিষার তেলের সাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করেও দাঁত ব্রাশ করা যেতে পারে। তুলসির রস রক্তের কোলেস্টেরল কমায়। শরীরের সুস্থতার জন্য তুলসির চা একটি জনপ্রিয় চা যা নিয়মিত খেলে দীর্ঘদিন সুস্থ থাকা যায়।

Topics:

তুলসি মহৌষধের অপর এক নাম যার রয়েছে অসাধারণ ওষধি গুণশক্তি

Login to comment login

Latest Jobs