Posted by

ভিডিও গেমসের ইতিহাস ও বিবর্তন!

Education 20

বর্তমান সময়ে আমরা যেসব কাজ প্রায়ই করে থাকি তার মধ্যে ভিডিও গেমস খেলা একটি। আজকের পৃথিবীতে টেকনোলজির সাথে সাথে ভিডিও গেমস ও উন্নত হচ্ছে।

ধন্যবাদ সবাইকে, আমার এই ব্লগটি পড়ার জন্য, এই আর্টকেলে আমি বলব আপনাদের প্রিয় ভিডিও গেমসের বিবর্তনের ব্যাপারে।

ভিডিও গেমসের ইতিহাস শুরু হয় ১৯৫৮ সালে। পৃথিবীর প্রথম ভিডিও গেমস ছিল একটি অতি সাধারণ টেনিস গেম যা পং (pong) নামেও পরিচিত।

কিন্তু গেমসটি বের হউয়ার মাত্র ১ বছরের মাথায় শেষ হয়ে যায়। এর কারণ, গেমসটির অনেক বেশি দাম এবং তাতে তেমন কিছু ছিলনা যেটা ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট করে।  এর পর থেকে, অনেক মানুষেই অনেক রকম গেমস বানানো শুরু করলো কিন্তু তেমন সাড়া পেল না।

তারপর, এমন একজন মানুষ আসলো যিনি ভিডিও গেমসের ধারণাই বদলে দিলেন।  রাল্ফ বের (Ralph Baer) সময় টিভির দাম অনেকটাই কম ছিলো। তাই তিনি চিন্তা করলেন এমন একটা কিছু বানানোর যেটা টিভির সাথে লাগিয়ে খেলা যায়। মুলত তিনিই হলেন প্রথম ব্যাক্তি যিনি ভিডিও গেমসের কনসোল বানিয়েছেন। 

রাল্ফ বের কে বলা হয় – দি ফাদার অফ ভিডিও গেমস। তিনি যে কনসোলটি বানিয়েছিলেন তাতে যে গেমসটি ছিল সেটাও পং (pong) ছিল। তখনকার সময়ে এটি এতই জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো যে এক বছরেই এক লাখ ইউনিট বিক্রি হয়।

এরপর বাজারে অনেক কনসোল কোম্পানী আসে যারা ব্যবহার করে "রাল্ফ বের" এর চিন্তাধারা। কিন্তু কনসোল থাকলেই তো হবে না, গেমস ও থাকতে হবে। কিন্তু সে সময়ে তেমন কিছু না থাকায় ভিডিও গেমসের মারকেটে লস হয়।

১৯৮০ তে "প্যাকমেন" (Pac man) রিলিজ হয় যা একদিক দিয়ে আনন্দদায়ক ছিল, ফলে তা প্রচুর জনপ্রিয়তা পায়।

"প্যাকমেন" এর পরপরই যে গেমসটি জনপ্রিয়তা পায় তা হলো "ডাক হান্ট" (Duck Hunt) যা ১৯৮৪ তে বের হয়।

ডাক হান্ট  ডাকহান্ট গেম একধরনের শুটিং গেম যেখানে একটি কুকুর ঝোপঝারের মধ্যে থেকে হাসকে তাড়া করে। ফলে হাসগুলো উড়ে যায় এবং প্লেয়ারকে বন্দুক দিয়ে সেগুলোকে মারতে হয়।  এটা খুবি আনন্দদায়ক গেম যা ২৮ মিলিয়ন ইউনিট বিক্রি হয়।

জনপ্রিয়তা পাওয়া গেমসগুলোর মধ্যে নাম লিখিয়ে নেয় "সুপার মারিও" ১৯৮৫ তে। বলতে গেলে সুপার মারিওর প্রতিটা সিরিজ ই খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

এরপর থেকে ভিডিও গেমসের ডেভেলপমেন্ট অনেকটাই এগিয়ে গেছে। এরপর থেকেই অনেক গেমসের সাথে আমাদের দেখা। ১৯৮৯ এর "প্রিন্স অফ পারসিয়া" (Prince of Persia), ১৯৯৪ এর "টেকেন" (Tekken)। এটাই সে সময় যখন কম্পিউটার জনপ্রিয়তা পেতে থাকে।

এমনি সময়ে কিছু চাইনিজ গেম আমাদের মন ছুয়ে যায় তাদের মধ্যে অন্যতম হলো "কেডিল্যাক্ট এন্ড ডাইনোসর" 

বা "কিং অফ ফাইটার" সিরিজ।

১৯৯৭ এ "গ্রেন্ড থেফট অটো"র প্রথম গেম বের হলে জিটিএ সিরিজ জনপ্রিয়তা লাভ করে।  

এবং এরপর থেকে গেমসের মান উন্নত হতে লাগে আর এখন আমাদের কাছে গেমসের কমতি নেই। যদি আমরা তুলনা করি প্রথম যুগের গেমস এর সাথে বর্তমান যুগের গেমসকে তাহলে অনেকেই নিছক পাগলামো মনে করবে।  কিন্তু, শুরু তো হয়েছিলো পং থেকে এবং আজ আমরা এখানে।

Topics: Video Games Evolutuon Technology Gaming

ভিডিও গেমসের ইতিহাস ও বিবর্তন!

Login to comment Login

You're not logged-in.

Login  — or —  Create Account
Latest Jobs

ক্লোজউই বাংলাদেশে তৈরি