Posted By

ওয়েব আর্টিকেল লিখতে চান? জেনে নিন এর খুঁটিনাটি ( ১ম পর্বঃ কিভাবে লিখবেন )

Education 258

 

যিনি লিখেন তিনিই লেখক, অথবা যা লিখি তাই কোন না কোন আর্টিকেল। আসলেই কি তাই? না অবশ্যই না। সবকিছুর একটা নির্দিষ্ট ধরন আছে। যেমন আপনি যদি পদ্য লিখতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই ছন্দ বুঝে মেনে লিখতে হবে। আবার নির্দিষ্ট প্লট ছাড়া আপনি গল্প লিখতে পারবেন না। ঠিক তেমন করেই নির্দিষ্ট কোন বিষয় ছাড়া আপনি আর্টিকেল লিখতে পারবেন না। আমাদের আলোচ্য বিষয় হচ্ছে ওয়েব আর্টিকেল। যারা এখন পর্যন্ত এই লেখাটা পড়তেছেন, আমি ধরে নিলাম  আপনারা সবাই ওয়েব আর্টিকেল লেখার ব্যপারে আগ্রহী অথবা ওয়েব আর্টিকেল লিখে থাকেন। আমি নির্দিষ্ট কোন ভাষাকে উল্লেখ করছি না। আমি বলতে চাচ্ছি ওয়েব আর্টিকেল নিয়ে। সেটা আপনি চাইলে বাংলা ভাষায় অথবা আপনার পছন্দমত ভাষা ( যেমনঃ ইংলিশ ) এ লিখতে পারেন। তো, আমি কে? আমি একজন সামান্য অনলাইন এক্টিভিস্ট। দীর্ঘ ৬ বছর যাবত ওয়েব ডেভেলপিং এবং আর্টিকেল রাইটিং নিয়ে কাজ করছি। আমার এই অল্প অভিজ্ঞতার আলোকে আমি চেস্টা করবো আপনাদের কিছু টিপস প্রদান করার। হ্যা হয়তো বা আমি সেরা লেখক নই, কিন্তু আশা রাখছি আমার কথাগুলো আপনাদের ওয়েব আর্টিকেল লেখার ক্ষেত্রে কাজে দিবে। কিছু হলেও শিখতে পারবেন। সুতরাং বেশি কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।  ও হ্যা, শিরোনামে উল্লেখ করার পরেও আরেকবার বলে নেই। পুরো লেখাটা কয়েকটি পর্বে থাকবে। প্রথম পর্বে আমি সাধারন কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো। এরপর ধীরে ধীরে আরো জটিল এবং ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয় নিয়ে এগুবো।

ওয়েব আর্টিকেল কি?

যখন আপনি ওয়েব আর্টিকেল লিখে ক্যারিয়ার গড়ার চিন্তা করছেন তখন আপনার অবশ্যই জানা উচিত জিনিসটা আসলে কি। আমি যদিও এখন পর্যন্ত এ নিয়ে যথাযথ কোন সংজ্ঞা খুঁজে পাই নি। কিন্তু আমার নিজস্ব অভিজ্ঞতার আলোকে আমি একটা সংজ্ঞা দাড় করিয়েছি। যখন কোন একটি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর সঠিক তথ্য সহকারে কোন কিছু লেখা হয় সেটাকে আর্টিকেল বলে। ( আবার অনেকেই বলবেন A An The হচ্ছে আর্টিকেল ) সেই আর্টিকেল যখন কোন অনলাইন প্রোপার্টির জন্য লেখা হয় অথবা কোন অনলাইন প্রোপার্টিতে প্রকাশিত হয় তখন তাকে ওয়েব আর্টিকেল বলা হয়। চলুন একটি উদাহরণ এর সাহায্যে জিনিসটা আরেকটু পরিস্কার করি। এই ধরুন আপনি মার্বেল খেলা জানেন। আপনি চাচ্ছেন এই জিনিসটা সবাইকে জানাতে। তো, এই নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে আপনি একটি লেখা লিখলেন এবং সেটা কোন অনলাইন ব্লগ বা ফোরামে পাবলিশ করলেন। তখন আপনার এই লেখাটিই একটি ওয়েব আর্টিকেল। কিন্তু আমি আগেই বলেছি আপনি শুধু লিখেই গেলেন আর সেটাকে আর্টিকেল বলা যায় না। সবকিছুর একটা নিয়ম কানুন আছে। আপনি হাবিজাবি লিখে গেলেই লোকে পড়বে তার কোন মানে হয় না। পাঠক তখনই পড়বে যখন আপনি তার পড়ার মত ইন্টারেস্টিং কিছু দিয়ে থাকবেন।

চলুন এবার জেনে নেই কিভাবে আপনি ওয়েব আর্টিকেল লিখবেন।

 

আরম্ভ, সুচনা, ভুমিকা

কিভাবে শুরু করবেন? মনে রাখবেন, আপনার লেখা প্রথম লাইনটিই যথেস্ট পাঠকের আকর্ষন ধরে রাখার জন্য। যদি আপনি শুরুটা ভালো করতে না পারেন তবে আর যাই লিখুন না কেন পাঠক তার পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস, আপনার পুরো লেখা জূড়ে পাঠক কি পেতে যাচ্ছে এবং কেন আপনার লেখাটি পড়বে সেটা অবশ্যই আপনি আপনার ভুমিকায় উল্লেখ করবেন। পাঠকের কাছে পরিস্কার করে দিন আপনি তাকে কি দিতে যাচ্ছেন। কত বড় ভুমিকা লিখবেন? অবশ্যই ঘোড়ার চেয়ে ঘোড়ার চাবুক বড় হতে পারেনা। আপনি ততটাই লিখবেন যতটুকু লিখে আপনি পাঠককে বোঝাতে পারেন আপনার মুল বিষয় কি হতে যাচ্ছে। ব্যাপারটা এমন না মূল বিষয়ের আলোচনা আপনার ভুমিকাতে থাকবে। আপনি কি বিষয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছেন শুধু সেটুকু জানালেই যথেস্ট। আর একটি গুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্ছে, পাঠককে কখনো দিকভ্রান্ত করবেন না। যদি আপনি ক্রিকেট নিয়ে লিখেন তাহলে আপনার কথাবার্তা সব ক্রিকেট বিষয়েই থাকবে অযথা ফুটবল নিয়ে কথা বলে পাঠককে দিকভ্রান্ত করবেন না। কারন পাঠক এখানে পড়তে এসেছে ক্রিকেট বিষয় নিয়ে।

 

মূল আলোচনা

এটাই সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন। এখানেই আপনি আপনার পাঠককে জানাচ্ছেন আপনি কি বলতে চাচ্ছেন। আপনার বক্তব্যটি পাঠকের কাছে যথাসম্ভব পরিস্কার করুন। দরকার হলে প্রয়োজনীয় ছবি যোগ করুন। কিন্তু এটুকু নিশ্চিত করুন আপনি যা  বলতে চেয়েছেন তা যেন পাঠকের কাছে বোধগম্য হয়। যদিও আমি যা বলতে চাচ্ছি মোটামুটি গুলিয়ে ফেলতেছি। আশাকরি ধীরে ধীরে পরিস্কার করতে পারব। চলুন একটু পরিস্কার করি। আপনি একটি আর্টিকেল লিখছেন কিভাবে ক্রিকেট খেলতে হয়। লেখায় সুন্দর করে একটা ভুমিকা দিয়ে আপনি ক্রিকেট খেলার উপকরণ কি কি সেসব নিয়ে কথা বলুন। তারপর খেলার নিয়মকানুন নিয়ে কথা বলুন। এরপর খেলাতে কি কি করা যাবে না , আর কি কি না করলে চলবে না এসব ব্যাপারে বলুন। তারমানে, আপনি যে বিষয় নিয়ে লেখাটি লিখছেন সেটা ধারাবাহিক ভাবে পাঠকের সামনে উপস্থাপন করুন। আর অবশ্যই আপনি ওলটপালট ভাবে উপস্থাপন করবেন না। যে জিনিসটা আগে জানানো উচিত সেটা আগে তারপর পর্যায়ক্রমে পাঠকের সামনে বাকিসব উপস্থাপন করুন। এবং ব্যাপারটা আরো বোধগম্য করার জন্য উদাহরণ দিতে পারেন। অথবা কোন বিখ্যাত মানুষের উক্তি যোগ করতে পারেন।

 

উপসংহার

এ পর্যায়ে আপনি আপনার লেখাটি ইতি টানার শুরু করেছেন। আপনার পুরো লেখা জূড়ে কি ছিল সেটা আরেকবার পাঠককে মনে করিয়ে দিন। এবং এখান থেকে পাঠক কি পেল সেটা পাঠককে জানিয়ে দিন। এবং প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দিয়ে ইতি টানুন। খুব বেশি বড় করে লেখার দরকার নাই। আবার খুব ছোট করেও লেখার দরকার নাই।

 

এসব গেলো ওয়েব আর্টিকেল লেখার একদম বেসিক কিছু জিনিস। যেগুলো আপনাকে অবশ্যই অবশ্যই মেনে চলতে হবে। কিন্তু এসব বাদেও অনেক কিছু আছে যেগুলো আপনাকে মেনে চলতে হবে। কারন যখন ওয়েব আর্টিকেলের ব্যপারে কথা হচ্ছে তখন সার্চ ইঞ্জিন এর জন্য অপ্টিমাইজেশন এবং কিভাবে শিরোনাম লিখবেন এসব ব্যাপারও খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আমি চাচ্ছি না সবকিছু এক লেখার  মধ্যে দিয়ে ব্যাপারটা দুর্বোধ্য করে তুলতে। তাইতো এই লেখাটাকে কয়েক পর্বে ভাগ করেছি।

এরপরের পর্বে থাকছে, কিভাবে শিরোনাম নির্বাচন করবেন এবং সার্চ ইঞ্জিন বান্ধ্যব (SEO friendly)  আর্টিকেল লিখবেন। এবং পর্যায় ক্রমে আরো আসছে যেসব সাধারন ভূল আমরা করে থাকি এবং কিভাবে সেগুলো এড়িয়ে চলবো এবং আরো অনেক কিছু।

আশাকরি সাথেই থাকবেন। পরের পর্বে আশাকরি আরো ভালো কিছু শিখতে পারবেন। ধন্যবাদ

Topics:

ওয়েব আর্টিকেল লিখতে চান? জেনে নিন এর খুঁটিনাটি ( ১ম পর্বঃ কিভাবে লিখবেন )

Login to comment login

Latest Jobs