আপনার জীবনের বড় চাবিকাঠি হতে পারে একটি গাছ!

Education 8

গাছ মানুষের সবচেয়ে প্রিয় বন্ধু। পৃথিবীতে আমাদের জীবন ধারণ করতে হলে এটি খুবই অপরিহার্য। বাগান এবং বন আমাদের সাথে সম্পর্কিত। বৃক্ষরোপণ আমাদের জীবনকে সুন্দর ও বিপদমুক্ত করতে পারে। গাছ আমাদের ওপর বিশাল গুরুত্ব আরোপ করে। তারা আমাদের জীবন বাঁচানোর জন্য অক্সিজেন দেয়। আমাদের জন্য বিপদজনক বিষাক্ত গ্যাস কার্বন ডাই-অক্সাইড তারা গ্রহন করে। গাছ আমাদেরকে খরা, ঘূর্ণিঝড়, বন্যা ও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ হাত থেকে রক্ষা করে। তারা আমাদের কাঠ ও জ্বালানি যোগান দেয়। তারা আমাদেরকে আশ্রয় দেয় এবং ফুল, ফল ও শিল্পের উপকরণ পাই। এরুপে গাছের গুরুত্ব কথায় বর্ণনা করা যায় না। গাছের বর্ণনা করতে হাজার হাজার পৃষ্টা শেষ করা যাবে কিন্তু গাছের বর্ণনা শেষ হবে না। আমাদের দেশ মুলত নিম্ন অতিবাহিত নদীর দেশ। এখানে গাছপালা জন্মাতে পারে। কিন্তু আমাদের বনজ সম্পদ পর্যাপ্ত নয়। একটি দেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে এর সমগ্র আয়তনের ২৫ % বনভূমি প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের মোট বনভূমি মোট ১৭%! এটি মানের চেয়েও নিচে। সুন্দরবন আমাদের প্রধান বন। ভাওয়াল, মধুপুর, পার্বত্য চট্টগ্রাম ইত্যাদি জায়গাতেও অনেক বন আছে। সুন্দরী, গরান ও গেওয়া ইত্যাদি আমাদের বিখ্যাতকাটের বন। বেঁচে থাকার ক্ষেত্রে গাছ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। আমাদের নিজেদের স্বার্থে আমাদের এসব রক্ষা করতে হবে। গাছকাটার ভয়ানক ফল আছে সেটা আমাদের জানা অত্যন্ত জরুরী। এটি একটা দেশকে মরুভূমিতে পরিণত করতে পারে। গাছ কাটার ফলে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যায়। বনের অভাবে বন্যা, ঘূর্ণিঝড় ও অন্যান্য প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঘটে। গাছকাটায় বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে গ্রিনহাউস প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হবে। গাছকাটার ফলে যখন তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে,তখন দেশের দক্ষিণাঞ্চলের নিম্নাংশ পানির নিচে তলিয়ে যাবে। এইজন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন গাছ লাগানো ও গাছ কাটা বন্ধ করার। সাথে গাছের পরিচর্যা করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। যেহেতু গাছ আমাদের এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে সাহায্য করে, তাই আমাদেরকে গাছের যত্ন নেয়া অত্যন্ত জরুরী। বেশি করে গাছ লাগানোর পাশাপাশি বেশি করে খেয়াল রাখা প্রয়োজন। এতে করে গাছ হয়ে উঠবে দ্রুত বর্ধনশীল। তাহলে আমাদের জীবন হবে আরামদায়ক ও বিপদমুক্ত। গাছ আমাদের জীবনকে সুশোভিত করে। গাছের গুরুত্ব উপলব্ধি করে, আমাদের সরকার ও সামাজিক সংগঠন গাছ লাগাতে বিস্তারিত পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। প্রতিবছর গাছ লাগানোর স্পৃহা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বন বিভাগ আমাদের জনগণের কাছে চারা বিতরণ করছে। নাগরিকেরাও ব্যাক্তিগতভাবে গাছ লাগাতে পদক্ষেপ নিচ্ছে। এতে করে অনেক সাহসের সাথে মানুষ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন করছে। বৃক্ষরোপন কর্মসূচির বিশাল গুরুত্ব আছে। প্রাকৃতিক বনায়নের জন্য, আমাদের প্রকৃতির উপর নির্ভরশীল হওয়া উচিত নয়। বরং সেচ্ছায় আমাদের এসব করতে হবে। বৃক্ষরোপন বলতে বোঝায় আমাদের অস্থিতের জন্য সাচ্ছন্দ্য ও বিপদমুক্ত ব্যবস্থা। আমাদের গাছের স্বার্থে কাজ করা উচিত নয়, আমরা কাজ করবো আমাদের নিজেদের স্বার্থে। বৃক্ষরোপণ আমাদের জীবন বিভিন্ন বিপর্যয় মুক্ত রাখবে। এই মতে, বৃক্ষরোপণ অর্থ আমাদের সুন্দর অস্তিত্ব। 

 

★★ গাছ রোপণের সময়কাল : গাছ আমাদের মুল্যবান সম্পদ। গাছ রোপণের সর্বোত্তম সময় জুন-জুলাই মাস। এই সময়, জনগণের মাঝে চারা বিতরণ করতে সরকারকে এগিয়ে আসা উচিত। সরকারের উচিত যন্ত্রের সাহায্য ধীরে ধীরে গাছ রোপণ করতে পদক্ষেপ নেয়া। আমাদের পর্যাপ্ত পতিত জমি আছে, সেটাকে কাজে লাগিয়ে আমরা গাছ লাগাতে পারি। রাস্তার ধারেও আমরা গাছ লাগাতে পারি। শুধু তাই নয়, বাস্তুভূমির পাশেও বৃক্ষরোপণ সম্ভব করা যেতে পারে। আজকাল এই কর্মসূচী বছরব্যাপী চালানো যেতে পারে। এক্ষেত্রে, নিরক্ষর লোকদের এটি করতে উপযুক্ত ভাবে উদ্ধুদ্ধ করা যেতে পারে। আলাদা কর্মসংস্থানের সুযোগ অনেক বেশিই বাড়বে। 

অবশেষে বলি, মানবজীবনে গাছের গুরুত্ব অনেক বেশি। আমাদের অস্তিত্বের প্রধান উৎস গাছ থেকে আসে। তাই, আমাদের উচিত গাছ না কাটা এবং বেশি করে গাছ লাগানো। আমাদের উপলব্ধি করতে হবে, গাছ হলো আমাদের স্বার্থ। এজন্য গাছ লাগানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। 

Topics: গাছ আমাদের জীবন বাঁচায়

আপনার জীবনের বড় চাবিকাঠি হতে পারে একটি গাছ!

Login to comment login

Latest Jobs