ক্রায়োসার্জারী কী? কীভাবে কাজ করে?

Health 47

বর্তমান আধুনিক কম্পিউটার এর যুগে সবকিছুই হচ্ছে কম্পিউটার এর মাধ্যমে। শিক্ষাব্যবস্হা থেকে শুরু সমর বিদ্যা সব ক্ষেত্রেই কম্পিউটার এর গুরুত্ব অপরিসীম। চিকিৎসা ব্যবস্হাও এর বাইরে নয়। বলা হয়ে থাকে তথ্য প্রযুক্তির যুগে সব চেয়ে বেশি অগ্রগতি সাধিত হয়েছে চিকিৎসা বিদ্যায়। এমনকি বর্তমানে ক্যান্সারের চিকিৎসা ব্যবস্হাও হয়েছে উন্নত থেকে উন্নতর। যার উদাহরণ হচ্ছে ক্রায়োসার্জারী। তো চলুন আজকে জেনে নেওয়া যাক ক্রায়োসার্জারী সম্পর্কে।

প্রথমেই জেনে নিই ক্রায়োসার্জারী আসলে কী। এটি এমন একটি চিকিৎসা যেখানে অত্যন্ত কম তাপমাত্রায় শরীরের অস্বাভাবিক ক্ষতিকর টিস্যু কে ধ্বংস করে থাকে। ক্রায়োসার্জারী শব্দটি গ্রীক এর দুটি অংশ ক্রায়ো এর অর্থ হলো বরফের মতো ঠান্ডা আর সার্জারী এর অর্থ হলো হাতের কাজ। চিকিৎসা পদ্ধতিতে ক্রায়োসার্জারী নতুন তা নয় বরং এর রয়েছে সুদীর্ঘ ইতিহাস। মিশরীয়রা এর ব্যবহার প্রায় ২৫০০ খ্রিষ্টপূর্ব থেকেই করে আসছে। সেই সময় তারা বিভিন্ন ত্বকের সমস্যা, ক্ষত, প্রদাহের সমস্যা ছাড়াও বিপজ্জনক চর্ম রোগের জন্যে শীতল তাপমাত্রায় এই পদ্ধতি ব্যবহার করতো। 

আর ইংল্যান্ডে এই পদ্ধতির ব্যবহার শুরু হয় ১৮৪৫ সালের দিকে। সেখানে জেমস আরনট নামক এক জনের দ্বারা লবণ পানিকে মাইনাস ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস এ জমা করে ব্যবহার করার পদ্ধতি আবিষ্কার করার মাধ্যমে ক্রায়োসার্জারী এর ব্যবহার শুরু হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন উপাদান এর সংমিশ্রণ ঘটেছে ক্রায়োসার্জারীতে। যেমন : তরল নাইট্রোজনের ব্যবহার, আর্গন, কার্বন-ডাই-অক্সাইড।

এখন নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছা করছে কীভাবে কাজ করে এই ক্রায়োসার্জারী। ক্রায়োসার্জারী কাজ যেভাবে করে তা হলো শরীরের ভিতর যে তাপমাত্রায় বরফ জমাট বাধেঁ তার চেয়েও কম তাপমাত্রার শক্তিকে কাজে লাগিয়ে কাজ করে। একে দেহের ভিতর ছিদ্র করে ঢুকানো হয়, আর যার মাধ্যমে ঢুকানো হয় সেই যন্ত্র কে বলে ক্রায়োগান। দেহের ভিতর ছিদ্র করে আসলে পূর্বে থেকে সুবিন্যাস করে রাখা বরফের ক্রিস্টাল ঢুকিয়ে দেয়া হয়।

বর্তমানে চিকিৎসায় ক্রায়োসার্জারী এর যে ব্যবহার গুলো লক্ষ্য করা যায় তা হলো প্রোটেস্ট ক্যান্সার, লাং ক্যান্সার, ওরাল ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার। তাছাড়াও প্লান্টার ফ্যাসিলিটিস এবং ফিবরোমা এর জন্য ক্রায়োসার্জারী ব্যবহার করা হয়ে থাকে।ক্রায়োসার্জারী সম্পর্কে অনেকের ভুল ধারণা রয়েছে। অথচ ক্রায়োসার্জারীতে ‘রক্তপাতহীন ভাবে অপারেশন করা হয়ে থাকে। ’ এখানে প্রযুক্তির দক্ষ ব্যবহার করা হয়। ক্রায়োসার্জারী ব্যবহারের সময় যাতে করে এর পাশের কোনো কোষ ক্ষতিগ্রস্ত না হয় এজন্য কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত ‘আল্ট্রাসাউন্ড’ পদ্ধতির ব্যবহার করা হয়। 

এর ব্যবহারের জন্য উৎপাদিত লিকুইড তথ্য প্রযুক্তি এবং কম্পিউটার ডিভাইস দ্বারা পরীক্ষা করা হয়। ক্রায়োসার্জারীর অপারেশন করতে ডাক্তার তৈরীর জন্যও ভাচুয়াল রিয়েলিটির মতো প্রযুক্তির ব্যবহার করা হয়ে থাকে।ক্রায়োসার্জারীর অপারেশন এ বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। যেমন : রক্তপাতহীন ভাবে অপারেশন করা হয়ে থাকে, এর কোনো পাশ্বপ্রতিক্রিয়া নেই বললেই চলে, কাটাছেড়া করার প্রয়োজন পড়ে না, এতে খরচের পরিমাণ কম এবং সুস্হ হতেও কম সময় লাগে, শরীরের উপর দিয়ে কোনো ধকল যায় না যা অন্যান্য সার্জারীতে হয়ে থাকে।

Topics: ক্রায়োসার্জারী কম্পিউটার চিকিৎসা বিদ্যায় কীভাবে কাজ চিকিৎসায় ক্রায়োসার্জারী

ক্রায়োসার্জারী কী? কীভাবে কাজ করে?

Login to comment Login

You're not logged-in.

Login  — or —  Create Account
Latest Jobs

ক্লোজউই বাংলাদেশে তৈরি