Posted By

যেভাবে বেছে নিবেন নিজের ক্যারিয়ার

Career 12

প্রত্যেক মানুষ সমাজে মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকতে চায়। মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকতে হলে বা ভালভাবে খেয়ে-পড়ে জীবন ধারন করতে হলে নিজ মর্যাদা অর্জনের বিকল্প নেই। মানুষের কর্মের উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হয় ভালো ফলাফল বা ভবিষ্যৎ। তাই কাঙ্ক্ষিত ফলাফল বা উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ পেতে হলে নিজ কর্মের প্রতি মনোযোগী হওয়া ছাড়া দ্বিতীয় কোনো পথ নেই। কর্মের ধরন যেহেতু ফলাফল নির্ধারণ করে তাই কীভাবে কাজ করলে তা কার্যকরী হবে সে বিষয়ে পরিকল্পনা করা অবশ্যই প্রয়োজন। কারণ পরিকল্পনাই কোনো লক্ষ্য অর্জনের পথ -কে সহজ করে দেয়।

 

মানুষের জীবনে শিক্ষাকালীন সময় ও কর্মজীবনের মধ্যে একটি মিল রয়েছে। আপনি সমাজে যেই পদমর্যাদার অধিকারী হতে চান তার অধিকাংশই নির্ভর করে সমাজে আপনি কতটুকু প্রতিষ্ঠিত বা আপনার কর্মস্থলের উপর। আর আপনার লেখাপড়া ও ক্যারিয়ার তৈরির পরিকল্পনা-ই নির্ধারণ করে দেয় পরবর্তী সময়ে আপনার কর্মজীবন। অর্থাৎ এ কথা বলা যায় যে, লেখাপড়া হল আপনার কর্মজীবনের প্রস্তুতিকালীন সময়। কিন্তু অনেকেই লেখাপড়ার পর ক্যারিয়ার সম্পর্কে পরিকল্পনা ও কিছু কৌশল অনুসরণ করতে না পারার ফলে পরবর্তী জীবনকে ঠিক গুছিয়ে নিতে পারেন না।

 

ক্যারিয়ার শুরুকালীন সময়ে আপনার সামনে অনেকগুলো পথ খোলা থাকবে। সেগুলোর মধ্যে কর্মস্থল হিসেবে বেছে নেওয়া আপনার দায়িত্ব। এই সময়টা আপনার জীবনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার পছন্দ সবসময় সঠিক নাও হতে পারে। একটা সময় পার হওয়ার পর আপনার মনে হতে পারে আপনি ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। তাই ক্যারিয়ার জীবনের শুরুতে অত্যন্ত সাবধানে ও বিচার-বিশ্লেষণ করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা উচিত।     তাই আজ আপনার জন্য রয়েছে এমন কিছু টিপস যা আপনার ক্যারিয়ার বাছাইয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করবে।

 

১. নিজেকে মুল্যায়ন করুন

ক্যারিয়ার জগতে পা দেবার আগে নিজেই নিজেকে মুল্যায়ন করুন। আপনি কোন কাজের জন্য ঠিক কতটুকু যোগ্যতাসম্পন্ন তা আগে নির্ধারণ করুন। কোন কাজের জন্য আপনি কতটা মানানসই এবং দক্ষতাপূর্ণ সেদিকে নজর দিন। এছাড়াও, আপনি কোন ক্যারিয়ারে নিজেকে গড়ে তুলতে চান বা আগ্রহী সেদিকে খেয়াল দিন। কারণ কোনো নির্দিষ্ট কাজের প্রতি আগ্রহী হলে সেই কাজে আপনি দ্রুত উন্নতি লাভ করতে পারবেন। তাই ক্যারিয়ার বেছে নেবার আগে আপনার নিজের সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য সংগ্রহ করে যাচাই করুন, আপনার ঠিক কোন পথ বেছে নেওয়া উচিত।     

 

২. পেশা নির্বাচনের জন্য তালিকা তৈরি করুন  

আপনার কাছে পেশা নির্বাচনের জন্য অনেকগুলো পথ খোলা থাকা সত্ত্বেও একটিকে বেছে নিতে হবে। যখন আপনার কাছে অনেকগুলো অপশন থাকবে তখন তার সঠিক বাছাই করতে দ্বিধায় পড়তে পারেন। এতে করে অনেক সময় সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে না পারার ফলে ক্যারিয়ারে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। তাই, সঠিক সিদ্ধান্ত ও পরিকল্পনা করার আগে ঠিক কোন পেশাগুলো আপনার জন্য সুবিধাজনক তার একটি তালিকা তৈরি করুন। এতে করে পেশা বাছাইয়ে আপনার জন্য সুবিধাজনক হবে। তালিকা তৈরির ক্ষেত্রে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যেন এ সম্পর্কিত কোন দিক বাদ না যায়। তাহলে আপনার ক্যারিয়ার গড়ার জন্য কোনো ক্ষুদ্রতর দিকও এড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকবে।     

 

৩. পেশা সম্পর্কিত সকল তথ্য সংগ্রহ করুন  

তালিকা তৈরির পর সেই পেশাগুলোর কিছু মৌলিক তথ্য সংগ্রহ করুন যা আপনার পেশা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। পেশাগুলোর ভবিষ্যৎ কিছু সুবিধা ও অসুবিধাগুলোকে চিহ্নিত করুন। এতে করে আপনি সহজেই পেশাগুলোকে নিজ ক্যারিয়ার হিসেবে বাছাই করতে পারবেন।     

 

৪. তালিকাটি সংক্ষিপ্ত করুন  

আপনার তালিকাভুক্ত সকল পেশাগুলোর মধ্যে যেগুলো আপনার উপযোগী হবে না সেগুলোকে বাদ দিন। অর্থাৎ আপনার পেশা নির্বাচনের তালিকাটিকে ছোট করুন। আপনি যখন আপনার তালিকাটিকে ছোট করবেন তখন আপনার কাছে অপশন কমে আসবে। এতে করে পেশা নির্বাচনের জন্য দ্বিধায় পড়তে হবে না এবং আপনার জন্য কাজ সহজ হয়ে যাবে। তবে তালিকা থেকে পেশাগুলোকে বাদ দেওয়ার যথাযথ কারণ আগে খুঁজে বের করুন। এমন যেন না হয় যে আপনার জন্য উপযোগী কোনো পেশা অসাবধানতার জন্য বাদ পড়ে যায়।   তালিকাকৃত সকল পেশা বিশ্লেষণ করে সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করুন। এক্ষেত্রে সংক্ষিপ্ত তালিকাতে ২ থেকে ৫ টি পেশা আপনার পছন্দ হিসেবে রাখতে পারেন। 

 

৫. পুনঃপর্যালোচনা করুন

সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি হওয়ার পর সেই অপশনগুলো পুনরায় গভীরভাবে বিশ্লেষণ করুন। আপনার তালিকাভুক্ত পছন্দের পেশাগুলোতে কাজ করছে এমন লোকজনের সাথে কথা বলুন। এতে করে পেশাগুলো সম্পর্কে আপনি বাস্তবসম্মত ধারণা লাভ করতে পারবেন। যা আপনার পেশা নির্বাচনকে আরও সহজতর করে তুলবে।   পেশাগুলোর সুবিধা-অসুবিধার দিকগুলো নিয়ে তুলনা করুন। এটা স্বাভাবিক যে সামগ্রিকভাবে কোনো পেশাই পুরোপুরি আপনার জন্য সুবিধাজনক হবে না। কিন্তু তুলনামূলকভাবে কোন পেশা আপনার জন্য গ্রহণযোগ্য ও সুবিধাজনক হবে তা সহজেই নির্ধারণ করতে পারবেন।    

 

৬. পছন্দকৃত ক্যারিয়ার নির্ধারণ করুন  

আপনার তালিকাভুক্ত সকল পেশাগুলো বিশ্লেষণ শেষে কোন পেশাতে ক্যারিয়ার গড়তে চান তার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলুন। চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য নিজেকে অগ্রাধিকার দিন যে আপনি কোন পেশায় সন্তুষ্ট থাকতে পারবেন। কারণ আপনার পরবর্তী পুরো জীবন নির্ভর করবে আপনার কর্মস্থলের ওপর। তাই সেই কর্মস্থলের প্রতি নিজের সন্তুষ্টি থাকা খুবই প্রয়োজন। ক্যারিয়ার নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় সকল দিক বিশ্লেষন হয়ে গেলে আপনার পছন্দকৃত ক্যারিয়ারে নিজ জীবন গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলুন।

 

৭. লক্ষ্য নির্ধারণ করুন  

আপনার পছন্দকৃত ক্যারিয়ার বাছাই হয়ে গেলে তা অর্জনের জন্য লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। যে কাজগুলো করলে আপনি আপনার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌছতে পারবেন সেই মোতাবেক কাজ করতে থাকুন। লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য কিছু স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি কৌশল গ্রহণ করতে পারেন।   ক্যারিয়ার তৈরির আগে বিকল্প রাখাও প্রয়োজন। কারণ পরিণতি সবসময় আপনার পরিকল্পনা মতো নাও হতে পারে। এক্ষেত্রে বিকল্প হিসেবে দুই-একটি পেশা নির্ধারণ রাখুন। যদি আপনি প্রথম পছন্দে সফল না হন তাহলে আপনার বিকল্প থেকে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেন। যা আপনাকে হতাশা থেকে দূরে রাখবে।

যেভাবে বেছে নিবেন নিজের ক্যারিয়ার

Login to comment login

  • Johirul Islam Sumon
    29 Jul 2018   07:19 am
    অসাধারণ হয়ে ভাই।
  • Johirul Islam Sumon
    29 Jul 2018   07:19 am
    লাইক দেওয়া যাচ্ছে না কেন ভাই???
    • Md Ariful Islam
      29 Jul 2018   07:10 pm
      ধীরে ধীরে সব হবে
Latest Jobs
  • Bangladesh Navy Welder Job Circular
    Bangladesh Navy
    Education: S.S.C/ Equivalent
    Experience: 0 Years
    Deadline: 25 Nov 2018
  • Bangladesh Navy Shipfitter Job Circular
    Bangladesh Navy
    Education: S.S.C/ Equivalent
    Experience: 0 Years
    Deadline: 25 Nov 2018
  • Bangladesh Navy Plater Job Circular
    Bangladesh Navy
    Education: S.S.C/ Equivalent
    Experience: 0 Years
    Deadline: 25 Nov 2018
  • Bangladesh Navy Diesel Fitter Job Circular
    Bangladesh Navy
    Education: H.S.C. (Vocational)
    Experience: 0 Years
    Deadline: 25 Nov 2018
  • Bangladesh Navy Carpenter Job Circular
    Bangladesh Navy
    Education: S.S.C/ Equivalent
    Experience: 0 Years
    Deadline: 25 Nov 2018