ডিপ্লোমাকে ঘিরে হতাশা

Fashion 20

আমি নাঈম। মোটামোটি দারিদ্র্য পরিবারের ছেলে। SSC পাশ করার পর উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তি হই। আমি পড়ালেখায় ততটা ভাল না। তার পরেও ভাবছিলাম ভালো করে পড়াশোনা করে জীবনে কিছুটা উন্নতি করতে পারবো। চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে নিজের জন্য এবং পরিবারের জন্য কিছুটা কল্যাণ বয়ে আনবে পারবো। ডিপ্লোমাকে ঘিরে অনেকটাই আসার বীজ বপন করেছিলাম। তবে ভর্তির কিছু দিন জেতে না জেতেই আসা এখন হতাশায় পরিনত হয়েছে। কারন চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)। বুয়েট থেকে চার বছর মেয়াদি (BSC) শেষ করতে আমাদের (১০+৪+৪=১৮) বছর সময় লাগবে। অন্য দিকে একজন ইন্টারের স্টুডেন্ট দশ (১০) টি ক্লাস পার করে একটি 'সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট' গ্রহণ করে এবং উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট অর্জনের জন্য হতে পারে কোন সরকারি/বেসরকারি অথবা এমপিওভুক্ত কোন কলেজ থেকে মাত্র দু-বৎসরে তেরোটি (১৩) বিষয় পড়ে অর্জন করে দুই (০২) বৎসর মেয়াদি 'উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট'।এবার দেখা যায় যে, মাত্র তেরোটি (১৩)টি পুস্তক পাঠ করে দুই বৎসর মেয়াদি উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট অর্জন করে, ঐ স্টুডেন্ট উচ্চ শিক্ষার জন্য ডুয়েট বাদে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যাডমিশনের সুযোগ পায়। এবং চার (০৪) বৎসর মেয়াদি অনার্স, ও এক (০১) বৎসর মেয়াদি মাস্টার্স, কোর্স সমাপ্ত করে পোষ্ট-গ্রাজুয়েশন ডিগ্রি লাভ/অর্জন করে। তাহলে ঐ সাধারণ স্টুডেন্টদের এস.এস.সি থেকে মাস্টার্স কোর্স সমাপ্ত করতে মোট ১০+০২+০৪+০১=সতেরো(১৭) বৎসর সময় লাগছে। আর যদি তিন বৎসর মেয়াদি ডিগ্রি কোর্স করে, মাস্টার্স করে। তাহলে ঐ স্টুডেন্ট এর মোট সময় ঐ একই সময় লাগছে, ১০+০২+০৩+০২=সতেরো (১৭) বৎসর। যেখানে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের চার বছর মেয়াদি" আট সেমিস্টারে সর্বমোট 'ষাট থেকে পয়ষট্টি' (৬০-৬৫) টি বিষয় পড়াশুনা করে সর্বমোট ক্রেডিট= ১৪০-১৫০ (একশত চল্লিশ থেকে একশত পঞ্চাশ)ক্রেডিট। যেখান চারটি বৎসরে 'সাইন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং, ব্যবসা ও মানবিক"এর সকল বিষয়সহ প্রায় ৬০-৬৫ টি বই পড়ে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন করে। আর লক্ষ-লক্ষ ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য পর্যাপ্ত পরিমানে আলাদা বিশ্ববিদ্যালয় নাই। আলাদা বিশ্ববিদ্যালয় না থাকার কারণে। উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের আশা ও স্বপ্নের এখানেই বিপর্যয় ঘটছে।তাহলে এবার দেখি- একজন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর স্টুডেন্টের শিক্ষা জীবনে দুটি সনদ নিতে,সময় লাগলো=১০+০৪=১৪ বৎসর। ইন্টার পড়ুয়া স্টুডেন্টদের থেকে দুটি বৎসর বেশি সময় ব্যয় করেও ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবে না? আবার দু একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ দেওয়া হলেও ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের জন্য আসন সংখ্যা বাড়ানো হয়নি। প্রকৌশলীদের তাদের নিজ নিজ টেকনোলজিতে BSC করার সুযোগ পায় না। চারিদিকের বিপকতা আমার জীবনের ডিপ্লোমাকে ঘিরে আসা এখন হতাশায় রুপ ধারণ করেছে। এই হতাশার মাঝেও একটু শান্তির নিশ্বাস ছেড়ে এগিয়ে যেতে চাই অনেক দূর।

Topics:

ডিপ্লোমাকে ঘিরে হতাশা

Login to comment Login

You're not logged-in.

Login  — or —  Create Account
Latest Jobs

ক্লোজউই বাংলাদেশে তৈরি