Posted By

শ্বেতী রোগ এবং করণীয়

Health 48

শ্বেতি একটি ত্বকের রোগ। অসচেতনতার কারণে শ্বেতী রোগীদের সামাজিক জীবন সীমিত হয়ে পড়ে। রং তৈরি করার কোষ অকার্যকর হলে ত্বকের রং বিবর্ণ হয়ে যায়, এটাই শ্বেতী। শ্বেতী হলে তা শরীরের অন্য কোনো অঙ্গে বিরূপ প্রভাব ফেলে না। করমর্দন, আলিঙ্গন বা অন্য কোনোভাবে এই রোগ সংক্রমিত হয় না।কুষ্ঠ ও শ্বেতী এক বা একই ধরনের রোগ নয়। কুষ্ঠ ছোঁয়াচে, কুষ্ঠ হলে ত্বক মোটা হয়ে যায়, আঙুলে অনুভূতি কমে যায়। তবে শ্বেতী হলে অনুভূতির কোনো সমস্যা হয় না। শ্বেতী রোগের লক্ষণ ও উপসর্গগুলো সাধারণত: হলো :

  • ত্বকের উপর সাদা দাগ
  • মাথার চুল, চোখের পাপড়ি, ভ্রু, দাড়ি সাদা ।
  • মুখের ভিতরের কলাগুলো বর্ণহীন হলে (Mucous membranes)
  • চোখের ভিতরের অংশ রংহীণ হলে অথবা রংয়ের পরিবর্তন ।

শ্বেতী রোগ হলে করণীয় – 

শ্বেতী রোগের চিকিৎসা অনেক সময়সাপেক্ষ, আবার পুরোপুরি নাও সারতে পারে। তবে ধৈর্য ধরে চিকিৎসকের পরামর্শমতে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করতে পারলে রোগীর এ রোগ সম্পূর্ণ ভাল হয়ে যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই প্রাথমিকভাবে শনাক্তকৃত শ্বেতী রোগের কার্যকর চিকিৎসা আছে। যেমন-মেডিকেল থেরাপি, ফটোথেরাপি, লেজার থেরাপি, কসমেটিক সার্জারি ইত্যাদি। রোগ ও রোগীর অবস্থাভেদে চিকিৎসা নির্বাচন করা হয়। এটা কোনোভাবে ছোঁয়াচে নয়। শতকরা মাত্র ৩০ ভাগের ক্ষেত্রে পারিবারিক সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তা হয় না, বিভিন্ন প্রকার শ্বেতী রোগ আছে। ধরনের ওপর ভিত্তি করে প্রকাশ পায় এর ব্যাপ্তি ঘটে। আধুনিক কালের গবেষণায় এটা প্রমাণিত-ভিটামিন সি বা টক খাবারে এই রোগ বাড়ায় না। বরং উপকার করে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে। সঠিক পরিমাণে পুষ্টিকর খাবারের জন্য তাগিদ করা হয়েছে। নিজের প্রতি যত্ন নিতে হবে, সূর্যের আলো প্রতিরোধ করে এমন মলম (ক্রিম) ব্যবহার করতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী থেরাপি ব্যবহার করতে হবে । প্রয়োজনে ত্বক প্রতিস্থাপন করা যায়। তবে সব রোগীর জন্য সব চিকিৎসা পদ্ধতি একরকম ফল দেয় না। রোগীর বয়স, রোগের স্থান এবং ব্যাপ্তিভেদে চিকিৎসা পদ্ধতি বাছাই করা হয়। কসমেটিক সার্জারি দুই বৎসর বা তার বেশি সময় ধরে যেসব ক্ষেত্রে সাদা দাগ স্থির থাকে বা নতুন দাগ আবির্ভাব হয় না অথবা ওষুধ এবং ফটোথেরাপিতে কাজ হয় না, সে ক্ষেত্রে কসমেটিক সার্জারি করা যায়। বিভিন্ন রকমের সার্জিক্যাল চিকিৎসা আছে। শ্বেতী রোগ হলে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত। কারণ চিকিৎসা না করালে অনেক সময় শ্বেতী রোগ মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। তাই ডাক্তারের পরার্মশ নিন এবং এবং শ্বেতী রোগ থেকে মুক্তি লাভ করুন।

 

যোগাযোগ করুন

ডাঃ মোঃ মাহাবুবুর রহমান শাহিন

কসমেটিক, ডার্মাটোলজিক ও হেয়ার ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন

অরোরা স্কিন এন্ড এস্থেটিক্স, ইউনিয়ন হাইট (লেভেল-৪), স্কয়ার হাসপাতালের পাশে, পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা-১২০৫

ফোন: ০১৭১৭৪৪৫২৫৫

Topics:

শ্বেতী রোগ এবং করণীয়

Login to comment login

Latest Jobs