Posted By

এবার বাড়ি ফেরার পালা

Education 9

ঈদের আর মাত্র ক"টা দিন বাকি যাই হোক ছুটি তো পেয়ে গেলাম "এবার বাড়ি ফেরার পালা"|ছুটি পেয়েই তাড়াহুড়ো করে বাসায় পৌছালাম। এবার কাউন্টারে যেতে হবে টিকেট কাটার জন্য,যতটা তাড়াতাড়ি সম্ভব ততোই ভাল। কিন্তু একি কাউন্টারে লম্বা লম্বা লাইন দেখে মনটা যেন কেমন হয়েগেল। মনের মধ্যে নানা রকম চিন্তা ঘুরপাক খেতে লাগল। টিকেট আজকে কাটব নাকি কাল সকালে এসে। একটু পরেই হল অন্যরকম অভিঙ্গতা, যার পিছনে দাড়ানোর কথা ছিল এখন দেখি তার পিছনে আরো দশজন দাঁড়িয়ে গেছে।ভাবলাম নাহ্ এবার দাঁড়িয়ে যাই নাহলে আরো দশ জনের পিছনে পড়তে হবে।টিকেট নিয়ে বাসায় ফিরলাম।পাশের ফ্ল্যাটের বন্ধুটা জিঙ্গাসা করল কিরে টিকেট পেয়েছিস তো?বললাম হ্যাঁ পেয়েছি তবে অনেক কষ্টে। সে বলল তুই তো পেয়েছিস কিন্তু আমি আজো পাইনি কাল আবার টিকেটের পেছনে দৌড়াতে হবে।যাক ভাই তুই ঠিকঠাক মত পৌছা আর আমার জন্য দুয়া করিস,বলেই সে যেন কোথায় বেরিয়ে গেল।সকালে গাড়িতে উঠব বলে সবকিছু গুছিয়ে রাখলাম।রাত দশটা বেজে ঘুমিয়ে পড়লাম ঘুমের মধ্যেও "বাড়ি ফেরার স্বপ্ন"।কাল গাড়িতে উঠব,বাড়ি যাব,মা-বাবা ও গ্রামের আত্নীয়দের সাথে ঈদ উদযাপন করব,কত মজা আর কত আনন্দই না হবে।এসব চিন্তা ভাবনার মাঝে কখন ঘুমিয়ে পড়েছি জানা নেই।ফজরের সময় হলে মোবাইলের এলার্মটা ঘুম ভেঙ্গে দিল। ফজরের নামাজের পর আবার পড়লাম তাড়াহুড়োয়।সকাল আটটার গাড়িতে উঠতে হবে।স্টেশনে এসে গাড়িতে ওঠে পড়লাম কিন্তু একি অবস্থা?গাড়ি ভর্তি মানুষ,ছাদের উপরও মানুষের ভিড়,কেউ বা কোনোভাবে ঝুলে আছে তার গন্তব্যে যাওয়ার জন্য।কি সংকটময় অবস্থা মানুষ জীবনের ঝুকিও নিতে প্রস্তুত মা-বাবা ও জন্মভূমির লোকের সাথে ঈদ করার জন্য। চারিদিকে শুধু গাড়ি আর গাড়ি,মানুষ আর মানুষ এতই যানজট যেন পা ফেলার জায়গাটুকুও নেই। গাড়িগুলো চলছে অটো ভ্যানের মতো আর ভ্যানগুলো চলছে থেমে থেমে।এক একটা মিনিট আমার কাছে খুব বিরক্তিকর ছিল।যাই হোক সেসব বিরক্তি ও জ্যামের মাঝেও একটা স্বাদ আছে । কেননা বছরের অন্যান্য সময়ে চাইলেও এরকম পরিবেশ পাওয়া যায়না।জ্যাম কেটে গাড়ি ছুটে চলল আর আমি জানালা দিয়ে বাইরের দৃশ্যগুলো উপভোগ করতে লাগলাম।কোথাও রাস্তার দুপাশে সবুজ ক্ষেত, কোথাও ক্ষেত ভরা ফসল, কোথাও রাস্তার দুপাশে গাছ আর গাছ যেন অনাবিল সুন্দর পরিবেশ। শুধু তাই নয় সবচেয়ে হৃদয় বিদারক দৃশ্যটি হল ব্রীজের সামনে একটা মোড়, মোড়ে অনেকগুলো লোকের ভিড় দেখেই গাড়ি থামল।সবাই গাড়ি থেকে নামলাম এবং কিছু মানুষের কান্না শুনেই ভীড়ের দিকে ছুটে গেলাম।কি মর্মাহত দৃশ্য দুটো গাড়ি পরস্পর ধাক্কা লেগে চুরমার হয়ে পড়ে আছে।সাথে পড়ে আছে ক্ষত-বিক্ষত লোকগুলো ও কারো দেহের ক্ষত-বিক্ষত অংশ। কেউ গুরুতর আহত হয়েছে, কেউ বা আর বেঁচে নেই, কেউ হয়তো বেঁচে আছে কিন্তু বাড়ি ফিরতে না ফিরতেই হাসপাতালে যেতে হয়েছে। পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হলে গাড়িতে উঠে বসলাম। বিভিন্ন চিন্তা ভাবনার মাঝে কখন ঘুমিয়ে পড়েছিলাম জানিনা ।হঠাৎ কানে একটা শব্দ এসেই ঘুম ভেঙ্গেগেল।বাইরে তাকাতেই দেখলাম, আমি সেই মায়াভরা ছোট সবুজ গ্রামে পৌঁছেগেছি। মনটা আনন্দে ভরেগেল। আর যেন বলতে লাগল "ফিরে এসেছি আমি,আমার জন্মভূমির কোলে"। অভিজ্ঞতা: বাড়ি ফেরার অর্থাৎ ঈদের সময়টুকু কিন্তু দূর্ঘটনা প্রবণ। তাই সময়কে সঙ্গে নিয়ে সতর্কতার সাথে পথ চলতে হবে।।

Topics:

এবার বাড়ি ফেরার পালা

Login to comment login

Latest Jobs