Posted by

সাম্প্রদায়িকতার নামে ইসলামে বাধা

Education 27

সাম্প্রদায়িকতা কথাটির সাথে আজকাল আমরা সবাই বেশ পরিচিত।

বর্তমানে সাম্প্রদায়িকতার যে মূল বিষয়টি সেটিকে আড়াল করে ইসলাম মানলেই সাম্প্রদায়িক মনোভাব হবে সেটি প্রচার করা হচ্ছে।

আজকে আমরা সেই বিষয়েই সংহ্মেপে আলোচনা করবো কারন সময়ের মুল্য সবার কাছেই রয়েছে।

...

সাম্প্রদায়িকতা বলা হয় তাকে যে আমার ধর্মের মানুষ সকল কাজ করার অধিকার রাখবে অন্য ধর্মের মানুষ নয়।

কিন্তু আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িকতা মানি বুঝানো হয় তুমি কেনো নামাজ পড়ো কিন্তু পুজার মন্ডপে কেনো যাওনা।

তারা বুঝাতে চায় ইসলাম মানলে অসাম্প্রদায়িক হওয়া যায়না অথচ ইসলামই সবচেয়ে বেশি উদার তারা কোন মানুষের ওপর জুলুম পছন্দ করেনা হোক সে হিন্দু বা মুসলিম। 

আমি একজন মুসলিম আমি হিন্দুদের ধর্ম পালনে বাধা প্রদান করবোনা কিন্তু আবার তাদের প্রতিমা বানাতে টাকা প্রদান ও করতে পারিনা।

আমার কাছে এটাই ইসলাম।

তারা তাদের ধর্ম পালন করবে তার মানে এই নয় যে আমি তাদের কে সাপোর্ট করবো যে তোমাদের ধর্ম সঠিক তোমরা পালন করো।

।।

আমাদের দেশের অনেকর থেকে শুনা যায় যে লাকুম দিনুকুম ওয়ালিয়াদিন সুরা কাফিরুন এর শেষ আয়াত দ্বারা বোঝানো হয়েছে যে যার যার ধর্ম সে পালন করবে কোন সমস্যা নেই।

কিন্তু এটি সম্পুর্ন ভুল ধারনা কারন এই আয়াত দ্বারা তাদেরকে ধিৎকার দেয়া হয়েছে তোমাদের ধর্ম তোমাদের আমাদের ধর্ম আমাদের এইখানে তাদের কে পরিষ্কার ভাবে পৃথক করে দেয়া হয়েছে.

-

আমরা আরেকটি বক্তব্য ইদানিং শুনতে পাই যে ধর্ম যার যার উৎসব সবার।

এটা একটি পরিষ্কার ভুল বক্তব্য।

একজন হিন্দুর উৎসব কি ঈদুল ফিতর হতে পারে? ঈদুল আযহা হতে পারে?

যদি তা না হয় তবে দুর্গা পুজা কিভাবে একজন মুসলিমের উৎসব হয়?

যেই মুর্তি পুজা বন্ধ করতে আমাদের মুহাম্মদ স: মার খেয়েছেন সেই মুর্তিপুজার উৎসব কিভাবে একজন মুসলিমের উৎসব হয়?

--

প্রশ্নটা রেখে গেলাম আপনার বিবেকের কাছে।

Topics: সাম্প্রদায়িকতা

সাম্প্রদায়িকতার নামে ইসলামে বাধা

Login to comment Login

You're not logged-in.

Login  — or —  Create Account
Latest Jobs

ক্লোজউই বাংলাদেশে তৈরি